চার বছর বয়সেই ক্লাস নাইনে!

প্রকাশিত: ১:৫৭ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০১৬

লখনউ : মাত্র ৪ বছর বয়সেই বিস্ময় শিশু অনন্যা ভার্মা ভর্তি হল ক্লাস নাইনে। অবশ্য শুধু সে-ই নয়। বিস্ময় তার দুই ভাই-বোনও। ভাই শৈলেন্দ্র ১৪ বছর বয়সে BCA কমপ্লিট করেছে। আর বোন সুষমা ১৫ বছর বয়সে ভর্তি হয়েছে PhD-তে। ২০০৭ সালে সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে ক্লাস টেনের পরীক্ষায় পাশ করে লিমকা বুক অফ রেকর্ডসে নাম তোলে সুষমা। তখন তার বয়স ছিল ৭ বছর ৩ মাস ২৮ দিন। তিন বছর আগে ১৩ বছর বয়সে সে BSc পাশ করেছে। তবে, বোনের রেকর্ড ভেঙে দেওয়ার লক্ষ্যে এবার পথে নেমেছে চার বছরের অনন্যা।

শিক্ষা দপ্তরের সম্মতিতে সোমবার ভারতের লখনউ স্কুলের ক্লাস নাইনে সে ভর্তি হয়েছে। এখন তার বয়স ৪ বছর ৮ মাস ২১ দিন। আর দু বছর পর উত্তরপ্রদেশের বোর্ড পরীক্ষায় পাশ করলেই সে ভেঙে দেবে দিদির রেকর্ড। দুই বোনই লখনউয়ের সেন্ট মীরাস ইন্টার কলেজ স্কুলের ছাত্রী।

অনন্যার বাবা তেজ বাহাদুর বাবাসাহেব ভীমরাও আম্বেদকর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচ্ছন্ন কাজের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারভাইজার। আর মা ছায়া দেবী নিরক্ষর। অথচ তাদেরই তিন সন্তান যেন স্রষ্টার উপহার। এমনই মনে করেন তেজ বাহাদুর।

তিনি জানান, ‘যখন অনন্যার বয়স এক বছর ৯ মাস, সে তখন রামায়ণ ও সুন্দর কাণ্ড পড়তে পারত। আমরা কখনো তাকে পড়াশোনার ব্যাপারে জোর করিনি। আমরা আশীর্বাদধন্য একটি পরিবার যেখানে সব বাচ্চাই বিস্ময় শিশু।’

অনন্যার মেধা দেখে তাকে স্কুলে ভর্তি হতে বাধা দিতে পারেননি স্কুলের জেলা পরিদর্শক উমেশ ত্রিপাঠী। তিনি জানান, ‘ক্লাস এইট পর্যন্ত ঘরে পড়াশোনার অনুমতি দেয় বোর্ড। অনন্যা যেহেতু এখন গড়গড় করে হিন্দি ও ক্লাস নাইনের বই পড়তে পারছে, তাই ও ক্লাস নাইনে ভর্তি হওয়ার যোগ্য।’

অনন্যাকে দেখে বিস্মিত স্কুলের প্রিন্সিপাল অনিতা রাতরা বললেন, ‘আমি ওকে একটা খবরের কাগজ পড়তে দিয়েছিলাম। ও ঠিক বড়দের মতো পড়ল। ওর শিক্ষাগ্রহণের ক্ষমতা মারাত্মক।’

সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

  •