৩০ সেপ্টেম্বর আসছে ইংল্যান্ড

প্রকাশিত: ৩:২৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৭, ২০১৬

নিরাপত্তার অজুহাতে সফর নিয়ে গড়িমসি করলেও বাংলাদেশে আসবে ইংল্যান্ড। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরই ঢাকায় পা রাখবে দলটি। থাকবে ২ নভেম্বর পর্যন্ত।

রবিবার সচিবালয়ে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে একথা জানানো হয়।

ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী আক্তার আহমেদ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সিইও নিজাম উদ্দিন আহমেদসহ সভায় সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নিজাম উদ্দিন চৌধুরী ইংল্যান্ডের আসার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,  ‘এর চেয়ে বড় বড় ইভেন্ট আমরা সফলভাবে আয়োজন করেছি। নিরাপত্তা নিয়ে কোনো সমস্যা হয়নি। এবারও হবে না।’

ইংল্যান্ড সবশেষ বাংলাদেশ সফরে এসেছিল ২০১০ সালে। অ্যান্ড্রু স্ট্রাউসের বিশ্রামে সেবারই নেতৃত্বের হাতেখড়ি হয়েছিল এখনকার টেস্ট অধিনায়ক অ্যালেস্টার কুকের।

গুলশান হামলার পর এবারের সফর ঘিরে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। ইংল্যান্ড থেকে বারবার বলা হয়, বাংলাদেশের অবস্থার দিকে নজর রাখছে তারা।

গতকালও এ নিয়ে বিবৃতি দেন দেশটির নিরাপত্তা পরিষদের উপদেষ্টা রেগ ডিকেসন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের নিরাপত্তার ভালোমন্দের দিকে আমাদের নজর আছে।’

কয়েকদিনের মধ্যে ঢাকায় আসার কথা দেশটির নিরাপত্তা দলের। এর আগে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ইংল্যান্ডের নিরাপত্তা দল ঢাকায় এসে সফরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে।

সফরকারীরা তিনটা ওয়ানডে খেলবে। ৭ ও ৯ অক্টোবর মিরপুরে। শেষ ওয়ানডে ১২ অক্টোবর, চট্টগ্রামে। এরপর ২০ তারিখ প্রথম টেস্টেও চট্টগ্রামে। দ্বিতীয় টেস্ট হবে ঢাকায়। ২৮ তারিখ থেকে।

পুলিশের পক্ষ থেকে বৈঠকে বলা হয়, ‘নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। এ নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।’

ক্রীড়া ও যুব মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী আখতারউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘প্রত্যেকবারই বিদেশি দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্ত দেয়া হয়। এবারও কোনো ঘাটতি থাকবে না।’

২ টেস্টের সিরিজ খেলতে গত বছরের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে আসার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়ার। দলও ঘোষণা করেছিল তারা। কিন্তু নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণ দেখিয়ে শেষ মুহূর্তে সফর স্থগিত করে দেয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

এরপর দেশটি বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত যুব বিশ্বকাপ থেকেও তাদের নাম প্রত্যাহার করে নেয়। ইংল্যান্ডের হাবভাব দেখে মনে হচ্ছিল তারাও বুঝি একই পথে হাঁটবে।

  •