টানা বর্ষণে তাহিরপুরের সাথে সুনামগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত: ৫:২১ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০১৬

সাজ্জাদ হোসেন শাহ্, তাহিরপুর ॥ হাওর বেষ্টিত ভাটির জনপদ হিসেবে পরিচিত তাহিরপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের সঙ্গে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা গত এক সপ্তাহ্ যাবৎ প্রায় বিচ্ছিন্ন রয়েছে। উপজেলার সীমান্ত নদী যাদুকাটার পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় বড় ধরণের বন্যা হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। গত এক সপ্তাহের টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে উপজেলার বালিজুরী, বাদাঘাট, বড়দল উত্তর, বড়দল দক্ষিন, শ্রীপুর উত্তর, শ্রীপুর দক্ষিণসহ তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের গ্রামীণ রাস্তা-ঘাটের কিছু অংশ ভেঙে গেছে এবং কিছু অংশ পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তাহিরপুর উপজেলার সীমান্ত সড়ক বারেকটিলা টু বাগলী (বীরেন্দ্রনগর) সড়কের কয়েকটি যায়গায় নির্মাণাধীন ব্রীজের নিচে প্রচুর পরিমান পানি আসায় সড়ক যোগাযোগ প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। এ ছাড়াও তাহিরপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের সঙ্গে জেলা সদরের একমাত্র সড়ক তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের শক্তিয়ারখলা একশো মিটিার ব্রীজ থেকে দূর্গাপুর পর্যন্ত ২কি. মি. সড়ক সম্পূর্ণ পানির নিচে তলিয়ে গেছে। গত পাঁচ দিন যাবৎ এখানে ছোট ছোট নৌকা দিয়ে যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মোটরসাইকেলসহ পারাপার হচ্ছেন।

তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাটের বাসিন্দা সুনামগঞ্জ গ্রামীণ ব্যাংকের চাকুরীজীবি রবিউল ইসলাম রিগ্যান, ব্যাবসায়ী সাইফুল ইসলাম সুমন, একেনুর মিয়া, আকবর আলী, সুহেল আহমদ সবুজ বলেন, গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের কারণে তাহিরপুর উপজেলার একমাত্র সড়ক তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের এ জায়গাটিতে প্রতিদিন জেলা শহরে যাথায়াতকারী হাজার হাজার যাত্রী অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

তাহিরপুর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোহাম্মদ খালেদুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলের কারণে উপজেলার ৭ ইউনিয়নের কিছু গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট ভেঙে গেছে। কিছু রয়েছে পানির নিচে। বৃষ্টিপাত কমে গেলেই এগুলো মেরামত করার প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট