সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মহিলা ও পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ভাটিবাংলার দৃষ্টি খুলে দিয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত: ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৬

জিয়াউর রহমান লিটন, দিরাই প্রতিনিধি : শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, হাওরাঞ্চলের জন্য নতুন শিক্ষানীতি পরিবর্তনশীল শিক্ষা ব্যববস্থা চালু করা হচ্ছে। শিক্ষা মন্ত্রী বলেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মহিলা ও পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ফলে ভাটিবাংলার দৃষ্টি খুলে দিয়েছে, সুনামগঞ্জে কোন স্কুল কলেজ বেসরকারি থাকবে না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, যে সব উপজেলায় সরকারি স্কুল কলেজ নেই সেই উপজেলা ১টি করে স্কুল ও কলেজ ২ মাসের মধ্যে সরকারি করা হবে, দিরাই-শাল্লার সবকটি স্কুল কলেজে নতুন বিল্ডিং করে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, কিছু যুবক বিভ্রান্ত হয়ে ইসলামের নামে জঙ্গিবাদি হয়ে গুলশান আর্টিজান ও শোলাকিয়া ঈদের জামায়াতে সন্ত্রাসী হামলা করে মানুষ হত্যা করেছে। ভাল ভাল স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের যুবকদের মদদ দিয়ে বিপদগামী করা হচ্ছে, তারা মনে করে ইসলামের নামে মানুষ হত্যা করলে বেহেস্ত  লাভ করবে, মানুষ মারলে বেহেস্তে যাওয়া যায় না,তা কোরআনে পরিস্কার উল্লেখ আছে। তিনি বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম, আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে, পিতা-মাতাকে সন্তানদের স্নেহ-মায়া মমতা দিয়ে পারিবারিক বন্ধনে আবদ্ধ রাখতে হবে, যুবকরা যাতে বিভ্রান্ত ও বিপদগামী না হতে পারে এ জন্যে আলেম ওলামাদেরকে ইসলামের সঠিক ব্যখ্যা দিতে হবে, ধর্মীয়-সামাজিক, দেশীয় মুল্যবোধসহ নতুন প্রজন্মকে আধুনিক শিক্ষা ও জ্ঞান অর্জন করে প্রকৃত মানুষ তৈরী করতে হবে। আমরা ইতি মধ্যে জঙ্গিবাদ নির্মুলে সমস্ত কুল কলেজে ও বিশ্ব বিদ্যালয়েকে হুশিয়ার করে দিয়েছি, ব্যবস্থা নিচ্ছি, বেসরকারি বিশ্ব বিদ্যালয়কে নিয়ে বসছি।

শনিবার দিরাইয়ে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মহিলা কলেজ ও পলিটেকনিকেল ইনস্টিটিউট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও স্থানীয় সাংসদ সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের সভাপতিত্বে এবং আইন বিচার ও সংসদীয় মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির সচিব মোয়াজ্জেম হোসেন ফিরাজের পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে তিনি এসব কথা বলেন।

বক্তব্য রাখেন. শাহানা রব্বানী এমপি, জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসাম, পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আছাব উদ্দিন সরদার, পৌর মেয়র মোশাররফ মিয়, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায়,অ্যডভোকেট সোহেল আহমদ, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা অ্যডভোকেট সামছুল ইসলাম, শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আল আমিন চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জিতু, লুৎফুর রহমান এওর মিয়া, ইউপি চেয়ারম্যান এহচান চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি শাহ জাহান সরদার, উপজেলা  যুবলীগ সভাপতি রঞ্জন রায়, পৌর যুবলীগ সভাপতি এনামুল হক, কলেজ শিক্ষক বৃন্দ পরিচালনা পর্ষদের সদস্যবৃন্দসহ গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

কারিগরি শিক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে কারিগরি শিক্ষায় পিছিয়ে আছে, অথচ যেখানে উন্নত দেশে ৮০-৬০ভাগ কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত, বাস্তব জিবনে কারিগরি শিক্ষা ও হাতে কলমে শিক্ষার বিকল্প নেই। তাই দক্ষ জনশক্তি তৈরী করতে হলে কারিগরি ও বিজ্ঞান সম্মত শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে।

নারী শিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দুটি প্রতিষ্ঠায় এলাকাবাসীর আন্তরিক সহযোগীতার প্রতি অভিনন্দন জানিয়ে সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত সভাপতির বক্তৃতায় বলেন, আজ এলাকার মানুষ শিক্ষার উন্নয়নে যে শতস্ফুর্ততা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন তা বিরল, এতে আমি আনন্দিত ও অভিভুত। আমার বিশ্বাস এ প্রতিষ্ঠান একদিন সিলেটের সেরা প্রতিষ্ঠানে পরিনত হবে। কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ক্ষজনশক্তিতে রুপান্তরিত হয়ে এলাকার বেকার সমস্যা দুর হবে।

  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বমোট পাঠক


বাংলাভাষায় পুর্নাঙ্গ ভ্রমণের ওয়েবসাইট