মাদক সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের সাথে কোন আপোষ নেই : পুলিশ সুপার ফরিদ

সিলেট বিভাগ

সিলেটের পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দীন পিপিএম বলেছেন, ‘অসহায় নির্যাতিত মানুষের আশ্রয় স্হল হতে হবে থানা। পুলিশের সীমাবদ্বতা থাকার পরও আচরণ মানসিকতা প্রদর্শন করে বিপদগ্রস্ত মানুষকে সেবা দিয়ে যেতে হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘মাদকের সাথে কোন আপোষ নেই।থানায় এসে জিডি বা মামলা করতে কেহ হয়রানীর শিকার হয়ে কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে ঐ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুুর দর্শিতার কারনে দেশে আজ জঙ্গীবাদ নির্মুল হতে চলেছে।’

বুধবার সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে জঙ্গি মাদক, সন্ত্রাস বিরোধী সমারেশে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেছেন। ফেঞ্চুগঞ্জ থানা প্রাঙ্গনে এ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাপগঞ্জ সার্কেল জনাব রাশেদুল হক চৌধুরী। ওসি তদন্ত খালেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহিরুল ইসলাম মুরাদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা ইয়াসমীন, আওয়ামীলীগের সভাপতি শওকত আলী, মুক্তিযোদ্বা কমান্ডার আকরাম হোসেন, মমিনছড়া চা বাগানের সত্বাধিকারী মুছলে উদ্দীন খান, কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি এ আর চৌধুরী সেলিম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ওসি আবুল বাশার বদরুজ্জামান। ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ওসির তত্ত্বাবধানে আত্মসমর্পন করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা ফেঞ্চুগঞ্জের দুজন মাদকসেবীও সমাবেশে বক্তব্য দেন।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ফেঞ্চুগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী বদরুদ্দোজ্জা, ঘিলাছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী লেইছ চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মিছবাহ চৌধুরী, ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মুহিব উদ্দীন বাদল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল কয়েছ, শ্রমিক লীগের সভাপতি আলতাউর রহমান রুনু, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সম্পাদক মাওঃ হারুনুর রশীদ, ফেঞ্চুগঞ্জ বনিক সমিতির আহবায়ক আব্দুল বারী, বিশিষ্ট চিকিৎক ডাঃ জাকির হোসেন, ফেঞ্চুগঞ্জ হিন্দু বৌদ্ব ক্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্র কুমার নাথ, পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রিশি কেশ দেব রন্টু, ফেঞ্চুগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সহ সম্পাদক তাজুল ইসলাম বাবুল, বালাগঞ্জ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্হার সভাপতি এম,এ, মতিন বাদশা, যুবলীগের আহবায়ক মাশার আহমদ শাহ, ছাত্রলীগের সভাপতি জুনেদ আহমদ, শ্রমিক নেতা আব্দুল মতিন, ও রাসেল আহমদ টিটু।

Leave a Reply