২৪ ঘণ্টার মধ্যে কমবে পেঁয়াজের দাম

জাতীয়

অস্থিতিশীল পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক করতে এসেছে নতুন ঘোষণা। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পেঁয়াজের দাম কমবে। এমন আশার কথা জানিয়েছেন ট্যারিফ কমিশনের সদস্য শাহ মো. আবু রায়হান আলবিরুনী।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিনের উপস্থিতিতে এক সভায় এ আশা প্রকাশ করেন টিসি সদস্য।

ট্যারিফ কমিশন সদস্য জানান, দেশে পেঁয়াজের পর্যাপ্ত পরিমাণ মজুত আছে। এ নিয়ে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। আজকের বৈঠকের পরই দাম কমে আসবে। আমাদের বক্তব্য যথাযথভাবে প্রতিফলন হলে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই দাম কমবে।

তিনি জানান, সোমবার পর্যন্ত পর্যন্ত ১২ লাখ টন পেঁয়াজের এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে। আমদানির তালিকায় রয়েছে ৪০ হাজার টন। এই সময়টা আমাদের লিংক পিরিয়ড। আগামী দেড় মাসে তা স্বাভাবিক হয়ে যাবে। কারণ নভেম্বরের শুরুতে ভারতে নতুন পেঁয়াজ নামবে। তখন কোনো বাধা থাকবে না। সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও জানান, দেশে পেঁয়াজের চাহিদা ২৪ লাখ টন। একই পরিমাণ উৎপাদন হয়। তবে পচনের কারণে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে সাড়ে সাত লাখ টন। যে কারণে ১১ লাখ টন আমদানি করতে হয়।

এ সময় বাণিজ্য সচিব জাফর উদ্দিন বলেন, সভা থেকে খুব শক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এখন যেভাবে দাম বাড়ছে এটা আর থাকবে না। বর্তমানে সন্তোষজনক মজুত আছে। তাই পেঁয়াজ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।  সম্প্রতি ভারতের মহারাষ্ট্রে পেঁয়াজের ফলন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সে দেশের অভ্যন্তরে দাম বেড়েছে।

যে কারণে ভারত সরকার পেঁয়াজের ন্যূনতম রপ্তানি মূল্য টন প্রতি ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করে। যা আগে ছিল ২৫০-৩০০ ডলার। যে কারণে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দামে ঊর্ধ্বগতি দেখা দিয়েছে। তবে আমদানি শুরুর আগেই পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি দুঃখজনক।

বাণিজ্য সচিব বলেন, আমরা হিসাব করে দেখলাম আমদানি পর্যায়ে যেগুলো পাইপলাইনে আছে এবং বর্তমানে যে মজুত আছে, তা সন্তোষজনক। কাজেই আমার মনে হয় পেঁয়াজ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার মতো কারণ নেই। পাইকারি থেকে খুচরা পর্যায়ে বেশি গ্যাপ তৈরি হয়েছে। সেজন্য ভোক্তা অধিকাররের মনিটরিংসহ পদক্ষেপ জোরদার করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানিতে এলসি বৃদ্ধির কারণে হঠাৎ করেই দেশের বাজারে দাম বাড়ে পেঁয়াজের। ৫০ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ এক দিনের ব্যবধানে ২৫ টাকা বেড়ে হয় ৭৫ টাকা। ভারতের বাজারে পেঁয়াজের মূল্য বাড়লেও দেশি পেঁয়াজের দাম লাগামহীন বৃদ্ধিতে অস্থির হয় বাজার। এমন পরিস্থিতির জন্য আসাধু সিন্ডিকেটকে দায়ী করে বাজার নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে সরকার।

  •  
  •  

Leave a Reply