কাশ্মীরে ভারতীয় বাহিনীর ভয়াবহ নির্যাতনের খবর ফাঁস

প্রকাশিত: ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯

কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ মর্যাদা প্রদান করা ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর কাশ্মীরিদের ওপর মারধর ও অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী। গত ৫ আগস্ট ভারতের এই সিদ্ধান্তের পর থেকে ক্যাবল, লাঠি দিয়ে মারধর ছাড়াও বৈদ্যুতিক শক দিয়ে কাশ্মীরিদের ওপর নির্যাতন চালানো হচ্ছে বলে খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা ‘বিবিসি’।

বিবিসির ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, কাশ্মীরের অনেক গ্রামবাসীর ওপর  ক্যাবল, লাঠি দিয়ে মারধর এবং বৈদ্যুতিক শক দেওয়ার মতো অভিযোগ এসেছে। অত্যাচারে শিকার ব্যক্তিরা নিজেদের নাম পরিচয় গোপন করার শর্তে এ তথ্য জানিয়েছে। এছাড়াও গত ৫ আগস্ট থেকে কাশ্মীরের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, ব্যবসায়িক, মানবাধিকার কর্মী এবং বিক্ষোভকারীসহ মোট ৩০০০ জনকে আটক করে কারাগারে প্রেরণ করেছে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী। কাশ্মীরে মোতায়েন করা হয়েছে ১০ হাজার অতিরিক্ত সেনাসদস্য।

কাশ্মীর নিয়ে বিবিসির প্রতিবেদক সামির হাসমির করা ওই প্রতিবেদনে বলা হয়,  আমি দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোর কমপক্ষে অর্ধ ডজন গ্রাম ঘুরে দেখেছি। এই সমস্ত গ্রামে বেশ কয়েকটি লোকের কাছ থেকে রাতের অভিযানে মারধর ও নির্যাতনের মতো একইরকম বিবরণ শুনেছি।

একটি গ্রামে বাসিন্দারা বলেছেন যে, ভারত দিল্লি ও কাশ্মীরের মধ্যে সাত দশকের পুরনো ব্যবস্থা নিয়ে আপত্তিজনক ও বিতর্কিত সিদ্ধান্তের ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পরেই সেনাবাহিনী ঘরে ঘরে গিইয়েছিল।

দুই ভাই অভিযোগ করেছেন যে, তাদের ঘুম থেকে তুলে বাইরের একটি জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় যেখানে গ্রামের প্রায় এক ডজন লোককে জড়ো করা হয়েছিল।

নির্যাতনের শিকার একজন নাম না প্রকাশের শর্তে জানায়, তারা আমাদের মারধর করেছে। আমরা তাদের জিজ্ঞাসা করছিলাম, আমরা কী করেছি? আমরা কিছু ভুল করেছি? তবে তারা কিছু শুনতে চায়নি, তারা কিছু বলেনি, তারা কেবল আমাদের মারধর করেছে।

নির্যাতনের শিকার আরেকজন জানায়, তারা আমার শরীরের প্রতিটি অংশে মারধর করেছে। তারা আমাদের লাথি মেরেছে, লাঠি দিয়ে মেরেছে, বৈদ্যুতিক শক দিয়েছে, ক্যাবল দিয়ে মেরেছে। তারা আমাদের পায়ের পিছনে আঘাত করেছিল। আমরা যখন অজ্ঞান হয়ে গেলাম তখন তারা আমাদের ফিরিয়ে আনতে বৈদ্যুতিক শক দেয়। তারা যখন আমাদের লাঠিপেটা করছিল তখন আমরা চিৎকার করছিলাম বলে তারা আমাদের মুখটি কাদা দিয়ে ভরে দিয়েছিল।

আরেকজন জানান, আমরা তাদের বলেছিলাম যে আমরা নির্দোষ। আমরা জিজ্ঞাসা করেছি, তারা এগুলো কেন করছে? তবে তারা আমাদের কথায় কান দেয়নি। আমি তাদের বলেছিলাম যে আমাদের মারবেন না, কেবল আমাদের গুলি করুন। কারণ নির্যাতন অসহনীয় ছিল।

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে কাশ্মীরকে ভারতের কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। এর সঙ্গে কাশ্মীরে জরুরি অবস্থা জারি করে বহু সংখ্যক সেনা মোতায়েন করা হয়। এছাড়াও কাশ্মীরের সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রীকে গৃহবন্দি করে রাখা হয় এবং কাশ্মীরে সকল ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা ছাড়াও বন্ধ করে দেওয়া হয় ইন্টারনেট সেবা।

তবে ভারত কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, কাশ্মীরে গৃহীত পদক্ষেপগুলো উদ্বেগজনক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এবং এই অঞ্চলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য করা হয়েছে। এই অঞ্চলটি ভারতের এক মাত্র মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল হওয়ায় সেখানে জঙ্গি উপস্থিতি রুখতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

  •