সিলেটের শাহী ঈদগাহ ময়দানে মুসল্লিদের ঢল

সিলেট বিভাগ

সিলেটে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুস্টিত হয় বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় ঐতিহ্যবাহী শাহী ঈদগাহ ময়দানে। জামাতে নামাজে ইমামতি করেন বন্দর বাজার কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ কামাল উদ্দিন। নামাজ শেষে দেশ এবং বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ ও শান্তি কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

ঈদের প্রধান জামাতে একই সারিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, প্রশাসনের কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী-শিল্পপতিসহ নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে আসা সাধারণ মানুষ নামাজ আদায় করেন।

এখানে নামাজ আদায় করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সিলেট সিটির নব-নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রশাসনিক, সামাজিক ও সুশীলসহ সর্বস্তরের মানুষ।

শাহী ঈদগাহে বরাবরের মত এবারও লক্ষাধিক মুসল্লি নামাজ আদায় করেন। মূল ঈদগাহ ছাড়িয়ে ঈদগাহ পার্শ্ববর্তী সড়কেও ঈদের নামাজ আদায় করেন লোকজন।

সিলেটের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদের জামাত সকাল ৮টা হযরত শাহজালাল (র.) দরগাহ মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। একই সময়ে সিলেট কালেক্টরেট মাঠ, টিলাগড়ে শাহ মদনী ঈদগাহ, শাহপরাণ মাজার মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সকাল পৌনে আটটায় আলীয়া মাদরাসা মাঠে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে নগরীর হাজী কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদে তিনটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৭টায় প্রথম জামাত, সকাল ৮টায় দ্বিতীয় এবং সকাল ৯টায় শেষ ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া মহানগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে বিভিন্ন ঈদগাহ ময়দানে ও ১২ উপজেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী সহস্রাধিক ঈদগাহ ও মসজিদে সকাল ৭টা থেকে ৯টার মধ্যে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। নামাজ শেষে মুসল্লিরা কোলাকুলি করে একে অপরের সাথে কুশল বিনিময় করেন।

নামাজ শেষে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য অনেকেই বাড়ি ফিরে পশু কোরবানি দেন।

জানা গেছে, সিলেট মহানগর ও জেলায় ১ হাজার ৪৫৩টি ছোট-বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ৫২০টি ঈদগাহে এবং ৯৩৩টি মসজিদে ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয়।

সিলেট মহানগরীতে ছোট-বড় ২৬৬টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়, যার ৮৩টি হয় ঈদগাহে এবং ১৮৩টি অনুষ্ঠিত হয় মসজিদে। নগর পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সিলেট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মো. মাহবুবুল আলম জানিয়েছেন, সিলেট জেলায় ১ হাজার ১৮৭টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ৭৫০টি মসজিদে এবং ৪৩৭টি ঈদগোহে ঈদ জামাত অনুষ্টিত।

  •  
  •  

Leave a Reply