ভাটেরার উন্নয়নে কাজ করার শপথ দুই সাবেক সচিবের

সিলেট বিভাগ

সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত কবি মোফাজ্জাল করিম বলেছেন, আমাদের প্রথম পরিচয় ভাটেরার অধিবাসী। আমরা ভাটেরার সুনাম বৃদ্ধি করব ইনশাল্লাহ। দেশ, জাতি ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অবদান রাখবে ভাটেরিয়ান। তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় বারের বিজয়ের কথা উল্লেখ করে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, জন্ম হোক যথা তথা কর্ম হোক ভালো। একজন চা বিক্রেতা যদি ভারতের মতো বৃহৎ রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন, তোমরাও পারবে-বলবে, আই ক্যান, আই ক্যান।
ভাটেরিয়ান সিলেট এর আহ্বায়ক মুহাম্মদ লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে শুক্রবার কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিলে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথাগুলো বলেন।
তিনি সিলেটি ভাষায় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন-‘আইজ যারা পুরস্কার পাইলায় বুঝছনি, তোমরা খেয়াল রাখিও। আল্লাহ রাব্বুল আলআমীন কইছন, ইফতারের আগের দোয়া কবুল হয়। আমি অন্তর থাকি তোমরার লাগি দোয়া করিয়ার তোমরা অনেক বড় অইবায়।’
তিনি আরো বলেন, ভাটেরিয়ান ইংরেজি শব্দ, বাংলায় ভাটেরাবাসী। আর আমি বলি ভাটিয়ালা, আমি এক নম্বর ভাটিয়ালা। ভাটেরিয়ানদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজকের এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে যে মায়ার বন্ধন, প্রীতির বন্ধন তৈরি হল তা ধরে রাখতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক শ্রমসচিব মিকাইল শিপার ভাটেরিয়ান সিলেট কর্তৃক কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনার আয়োজন করায় অভিনন্দন জানিয়ে সংবর্ধিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন-তোমাদের অনেক উপরে উঠতে হবে। তোমাদের মধ্য থেকেই আগামী দিনের একেকজন মোফাজ্জল করিম তৈরি হতে হবে। ভবিষ্যতে ভাটেরিয়ান সিলেট এর সকল কর্মসূচিতে আমার সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে ইনশাল্লাহ।
ভাটেরিয়ান সিলেট এর সদস্য সচিব শামীম আহমদ ও নির্বাহী সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান খান টিপুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে কোরআন তেলাওয়াত করেন-হাফেজ সায়েম খান এবং দারসে কোরআন পেশ করেন হাফিজ মাওলানা মাহবুবুর রহমান।

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে, ভাটেরিয়ান সিলেট এর প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে ভাটেরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ এ.কে.এম. নজরুল ইসলাম ঘোষণা করেন, ‘ভাটেরা-বেরকুড়ি-ভূকশিমইল’ রাস্তা কবি মোফাজ্জল করিমের পিতা শিক্ষাবিদ আলহাজ্ব এরশাদ আলী বিএবিটি’র নামে নামকরণ করা হবে।
অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন, ঢাকা উইমেন্স কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শারমিন হোসেন রুহি ও ভাটেরা মদিনাতুল উলুম সাইফুল তাহমিনা মাদরাসার অধ্যক্ষ মো. ফয়জুর রহমান।
অনুষ্ঠানে ভাটেরিয়ান সিলেট এর জীবনসদস্য হওয়ার ঘোষণা দেন প্রধান অতিথি কবি মোফাজ্জল করিম ও বিশেষ অতিথি সাবেক সচিব মিকাইল শিপার সহ ৭ জন সুধী।
অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি ডাইরেক্টর আব্দুল মতিন, গোটাটিকর উচ্চ বিদ্যালয় সহকারী প্রধান শিক্ষক এ কে এম মতিউর রহমান আজাদ, কবি বাছিত ইবনে হাবিব, ভাটেরিয়ান সিলেট যুগ্ম আহ্বায়ক মো. শফিক মিয়া ও আহমদ কবির রিপন, ডা. মিজানুর রহমান মামুন, ভাটেরিয়ান সিলেট এর যুগ্ম সদস্য সচিব প্রকৌশলী এহসান রেজা খান। কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে বক্তব্য রাখেন ভাটেরিয়ান সিলেটের কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহমান খান।
অনুষ্ঠানে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১১ জনকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধিত শিক্ষার্থীরা হলো-ভাটেরা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে-মুমু বেগম, সাইদুল ইসলাম উজ্জ্বল, রাহুল দেবনাথ, অমি বেগম, আলবা বেগম, জুমায়রা রহমান লিসা, আনিসা খানম লিসা, তাসমিনা তাম্মি, সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাহদি হাসান রাব্বি এবং ভাটেরা মদিনাতুল উলুম সাইফুল তাহমিনা আলিম মাদরাসা থেকে সান্নি বেগম ও সুনিয়া বেগম।-বিজ্ঞপ্তি।

  •  
  •  

Leave a Reply