তিনটি মেয়েকে অধ্যক্ষের যৌন হয়রানির আমি সাক্ষী, বললেন ফেনী মাদ্রাসার গার্ড

জাতীয়

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার একজন গার্ড বলেন, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ থাকলেও ক্ষমতাধর লোকদের সাথে দহরম থাকার কারণে কখনো তাকে বিচারের মুখে পড়তে হয়নি। কতিপয় আওয়ামী লীগ নেতাও সাবেক এই জামায়াত নেতাকে নানা অপকর্মে সাহায্য সহযোগিতা করতেন। ডেইলি স্টার

শনিবার এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন তিনি।

মাদ্রাসার এই গার্ড জানান, অধ্যক্ষ সিরাজের দুষ্কর্মের ঘটনা জানার কারণে মাদ্ররাসার কোন মেয়েই তার কাছে একাকি যেত না। তারা দলবদ্ধ হয়ে যেত। কোন শিক্ষার্থী তার বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পেত না।

তিনি বলেন, মাদ্রাসার ১৫ টি দোকান ও দুটি ব্যাংকের ভাড়া বাবদ যে দেড়লাখ টাকা আয় হতো তা এলাকার প্রভাবশালীদের সাথে অধ্যক্ষ তা তসরুপ করতেন। নুসরাত হত্যার মামলার পর অধ্যক্ষের সঙ্গী সাথীদের বিরুদ্ধে মামলা হলে বেশ কয়েক জন গ্রেফতার হন।

নুরুদ্দিন ও শাহাদাত নিজেদের ছাত্রলীগ কর্মকর্তা বলে পরিচয় দিত। মোস্তফা অধ্যক্ষ সিরাজের পিয়ন হিসেবে কাজ করতো। সে এক সময় মাদ্রাসায় গার্ড ছিল। তার বক্তব্য আমি অন্তত তিনটি মেয়েকে অধ্যক্ষকে যৌন হয়রানি করতে দেখেছি।

Leave a Reply