নগরীতে ডিজিটাল ট্রাফিক প্রসিকিউশন ও ফাইন পেমেন্ট সিস্টেম চালু

সিলেট বিভাগ

সিলেট মেট্টোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগে ই-ট্রাফিক প্রসিকিউশন এবং ফাইন পেমেন্ট সিস্টেম চালু হয়েছে। এখন থেকে ট্রাফিক পুলিশ ফিটনেস কাগজপত্রসহ যানবাহন ও চালক সংক্রান্ত বিভিন্ন মামলায় জরিমানা আদায় করা হবে পজ মেশিনের মাধ্যমে। এতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আরো সহজ হবে। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বুধবার বিকেলে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে দ’ুটি গাড়িতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মামলা প্রদানের মাধ্যমে এ সার্ভিসের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, আজকের পর থেকে ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম আরো স্বচ্ছ হবে। এতে দেশ ও জনগণ উপকৃত হবেন। ডিজিটাল রশিদ পাওয়ায় গাড়ির চালক যেমন সন্তুষ্ট থাকবেন, তেমনি সন্তুষ্ট থাকবেন প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্র্মকর্তাবৃন্দও। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিতোষ ঘোষ, ট্রাফিকের ডিসি (দক্ষিণ) ফয়সল মাহমুদ, ডিসি (উত্তর) আজবাহার আলীসহ উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাগণ।
ই-ট্রাফিক প্রসিকিউশন এবং ফাইন পেমেন্ট সিস্টেম চালু উপলক্ষে বুধবার সকালে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক শাখায় এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এ সময় পুলিশ কমিশনার ছাড়াও পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া, ইউসিবি ব্যাংক, গ্রামীণ ফোন ও আইসিটি কনসালট্যান্ট প্রতিনিধিদের সাথে ট্রাফিক বিভাগের আলাদা আলাদা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।
ট্রাফিক বিভাগ থেকে জানানো হয়, এটি আধুনিক ট্রাফিক প্রসিকিউসন পদ্ধতি। এর মাধ্যমে পুলিশ একটি গাড়িতে মামলা প্রদানের সাথে সাথে গাড়ির মালিক ইউক্যাশ এর মাধ্যমে জরিমানা প্রদান করে তার গাড়ির কাগজ নিতে পারবে। এ ক্ষেত্রে তার ট্রাফিক অফিসে লাইনে দাঁড়িয়ে মামলা ভাঙ্গাতে হবে না। এছাড়া এ ডিজিটাল মেশিনের মাধ্যমে গাড়ির রেজিস্টেন নাম্বার দিলেই উক্ত গাড়ির মালিকানা সহ রেজিস্ট্রেশন, ফিটনেস, ট্যাক্স’র সব তথ্য পাওয়া যাবে।

Leave a Reply