তাহিরপুরে শিশুর আঙুল কাটার অপরাধে যুবলীগ নেতা কারাগারে

সিলেট বিভাগ

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ফসল রক্ষা বাধের উপর ওঠার অপরাধে কাঁচি দিয়ে শিশুর চারটি আঙুল কেটে দেয়া যুবলীগ নেতাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে যুবলীগ নেতা আবদুল অদুদকে আদালতে নেয়া হলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক তাকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

গ্রেফতারকৃত যুবলীগ নেতা আবদুল অদুদ দক্ষিণ শ্রীপুরপুর ইউনিয়নের সোলেমানপুর গ্রামের জমির আলীর ছেলে ও দক্ষিন শ্রীপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক। ঘটনার পর পরই অদুদ গা ঢাকা দেয়। গত বুধবার সন্ধায় গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে তাহিরপুর থানার এস আই আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অনেক চেষ্টায় প্রায় এক বছর পর সোলেমানপুর বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর জানান, শিশু ইয়ামিনের পিতা শাহানুর মিয়া বাদী হয়ে ২০১৮ সালের ২০ মার্চ ঘটনার মূলহোতা অদুদ মিয়া ও তার সহোদর আলম মিয়াকে আসামি করে তাহিরপুর থানায় মামলা করে। পরে অদুদকে গ্রেফতার করে পুলিশ আদালতে প্রেরণ করে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের হাওরের ময়নাখালি বেড়িবাঁধে সোলেমানপুর গ্রামের শাহনুর মিয়ার ছেলে ইয়ামিন সহ কয়েকজন মিলে নির্মাণাধীন ফসল রক্ষা বাঁধের উপর খেলা করছিল। খেলা করার অপরাধে শিশু ইয়ামিনের ডান হাতের চারটি আঙুল কাঁচি দিয়ে কেটে দেয় যুবলীগ নেতা ও তখনকার প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) সভাপতি অদুদ। এই বিষয়টি নিয়ে তৎকালিন সময়ে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি হয় এবং যুবলীগ নেতাকে গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে জেলা উপজেলায় মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়।

Leave a Reply