নৌকার বিজয়েই মানুষ নিজেদের প্রাপ্য অধিকার পান : শফিক চৌধুরী

সিলেট বিভাগ

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, বাঙালী জাতির যা অর্জন আছে এবং বাংলাদেশের যতটুকু উন্নয়ন হয়েছে, তার সবটুকুই হয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের আমলে। একমাত্র নৌকার বিজয়েই মানুষ নিজেদের প্রাপ্য অধিকার পান, আর ধানের শীষের বিজয়ে বাংলাদেশ টানা ৫ বার দূর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। নৌকার বিজয়ে বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ রাষ্ট্রে পরিনত হয়ে আজ বিশ্বে উন্নয়নে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ব্যাপক উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে। আর ধানের শীষের বিজয়ে বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া’সহ বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা আত্মসাৎ করে এতিমদের টাকা।

তিনি আরও বলেন, জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র যোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশের সর্বস্তরের জনগণ পাচ্ছেন বিনামূল্যে সার-বীজ, চিকিৎসা সেবা, বিদ্যুৎ সংযোগ এবং শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তি পাওয়ার পাশাপাশি বছরের শুরুতেই পাচ্ছে বিনামূল্যে নতুন বই। তাই আসন্ন নির্বাচনেও নৌকায় ভোট দিয়ে সারা দেশে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদেরকে নির্বাচিত করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা’কে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করুণ। কারণ জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকলে অব্যাহত থাকবে বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা।

তিনি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলার রামপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথাগুলো বলেন।

সভায় বক্তারা বলেন, সিলেট-২ আসনের উন্নয়নের জন্য শফিকুর রহমান চৌধুরী’র কোন বিকল্প প্রার্থী নেই। তাই আসন্ন নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে শফিক চৌধুরীকে নির্বাচিত করে সিলেট-২ আসনটি প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা’কে উপহার দিতে আমাদের সবাইবে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। এজন্য নির্বাচনী আসনের প্রত্যেক গ্রামের ঘরে ঘরে গিয়ে সরকারের বাস্তবায়িত উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে প্রত্যেকের কাছে নৌকা প্রতিকে ভোট চাইতে হবে।

রামপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি কাওছার আহমদের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি হরমুজ আলী, বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সমছু মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক আমির আলী চেয়ারম্যান, মকদ্দছ আলী, রামপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলমগীর, সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আজিজ সুমন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাস্টার ফখর উদ্দিন, কার্যনির্বাহী সদস্য নিজাম উদ্দিন, মহানগর কৃষক লীগের সহ সভাপতি শেখ মোঃ আজাদ, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ছুরাব আলী, ওসমানীনগর উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি জাবেদ আহমদ আম্বিয়া, বিশ্বনাথ উপজেলা যুবলীগে যুগ্ম আহবায়ক আলতাব হোসেন, যুবলীগ নেতা মুহিবুর রহমান সুইট, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি সুহেল আহমদ মুন্না, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ বোরহান আহমদ রুবেল।

বক্তব্য রাখেন- রামপাশা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোহন মিয়া, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরব শাহ। সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন সাকিব আহমদ ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন রামপাশা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ফয়ছল আহমদ।

জনসভায় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যান সম্পাদক আবদুল মতিন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শামীম আহমদ, অর্থ সম্পাদক নুরুল ইসলাম, সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য আফরোজ বখত খোকন, এমদাদুল হক, রিয়াজুল হক, মিজানুর রহমান মিজান, এনামুল হক এনাম মেম্বার, রফিক হাসান মেম্বার, আওয়ামী লীগ নেতা ছালিক মিয়া, শের আলী, রইছ আলী, মিজাজুল হোসেন, সামছুর ইসলাম মঙ্গল, বশির উদ্দিন, আল উদ্দিন, দুদু মিয়া, বাহরাম উদ্দিন, সিরাজ মিয়া, মখদ্দুছ আলী, রফিজ আলী, ইর্শ্বাদ আলী, গেদা মিয়া, কাছা মিয়া, বাবুল মিয়া, ইয়াছিন মিয়া, আচরব আলী, মোশাহিদ আলী, শানুর আহমদ জয়দু, ইউপি মেম্বার ইছহাক আলী, জামাল আহমদ, সাবেক মেম্বার আশরাফুল হক, সেলিম মিয়া, সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ ডাইরেক্টর ইমরান আহমদ বাবুল, উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল হান্নান বদরুল, কৃষক লীগ নেতা তেরাব আলী, সুনা মিয়া, উপজেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরান দে, যুবলীগ নেতা আবদুল হক, দুলাল মিয়া, আবদুল মুকিদ, রুকন চৌধুরী, সুহেল মিয়া, দবির মিয়া, রাসেল আহমদ, সুন্দর আলী রুহুল, সাদ নূর মাস্টার, লিটন মিয়া, সমরু মিয়া, আল মনসুর, রাজু আহমদ খান, মুছা মিয়া, বকুল মিয়া, গেদা মিয়া, জনি দাশ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অর্থ সম্পাদক সেলিম মিয়া, সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রফিক মিয়া, রফিক আলী, মাহফুজুর রহমান দুলু, সিজিল মিয়া, মুহিত চৌধুরী, সুহেল খান, নিজাম উদ্দিন, জহির উদ্দিন, রাসেল আহমদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক আকমল হোসাইন, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মুজিবুর রহমান মঞ্জু, আলী আহমেদ জুয়েল, নজরুল ইসলাম প্রিন্স, নজরুল ইসলাম সাহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরান আহমেদ, জুবায়ের আহমদ জয়, মাসুদ আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা আবদুল মুকিদ সুমন, সিরাজুল ইসলাম রুকন, সাব্বির বখত মুন্না, আবুল কাশেম নোমান, মাসুদ আহমদ, সামাদ আহমদ, হিমেল আহমদ, ফয়ছল আহমদ, রাহিদ, জাকির হোসেন, জুয়েল আহমদ, দুদু মিয়া, মারুফ আহমদ, কয়েছ মিয়া, শিপন মিয়া, কামরুল ইসলাম, মিয়াদ আহমদ, আশরাফ আহমদ, ইমরান আহমদ, আবিদুর রহমান, মুহিব আহমদ, লোকমান হোসেন, শামীম আহমদ, ছাদিক মিয়া, ইমন আহমদ, নূরুল আমীন, কামরান আহমদ, নাজমুল এইচ শিশির, জেলা ধ্রুবতারার সভাপতি আবদুল বাতিন প্রমুখ’সহ আওয়ামী লীগ, অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ব্যক্তিবর্গ।

Leave a Reply