যুক্তরাজ্যে স্কুলগামী শিক্ষার্থীদের ইউনিফরম হিসেবে হিজাব ক্রমেই জনপ্রিয় হচ্ছে

আন্তর্জাতিক

লন্ডন : যুক্তরাজ্যের এম এন্ড এস( Marks & Spencer’s) নামক একটি পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের জন্য হিজাব বিক্রি শুরু করেছে। দেশটির কয়েকশত বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে এম এন্ড এস( Marks & Spencer’s) এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে।

এই বসন্তে ভোক্তাদের চাহিদার উপর ভিত্তি করে এম এন্ড এস নামক প্রতিষ্ঠানটি এসব হিজাব বাজারে নিয়ে আসে। যেসব অভিভাবক চান তাদের সন্তানেরা বিদ্যালয়ে তাদের মাথা এবং চুল ঢেকে রাখুক সেসব অভিভাবকদের কথা চিন্তা করে এম এন্ড এস এ ধরনের হিজাব বাজারে নিয়ে আসে।

এম এন্ড এস নামক এই প্রতিষ্ঠানটি যুক্তরাজ্যের অন্তত ২৫০টি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিফরম তৈরি করেছে। এসব বিদ্যালয় থেকে অনুরোধ প্রাপ্তির পর তারা শার্ট, স্কার্ট এর পাশাপাশি হিজাব সংযুক্ত ইউনিফরমের যোগান দিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে।

এসব হিজাবের প্রতিটি প্রায় ৬ ইউরো মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে, যেগুলো ৯ বছর বয়সী মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে।

হিজাব অর্থ হচ্ছে মুসলিম নারীদের পরিধেয় একধরনের পোশাক যা তারা যে কোনো পুরুষের সামনে পরিধান করে থাকেন যাদেরকে সাধারণত বিবাহ করা নিষিদ্ধ। তবে মুসলিম নারীদের সম্মুখে হিজাব পরিধান করা আবশ্যকীয় নয়।

সম্প্রতি এম এন্ড এস নামক প্রতিষ্ঠানটি মুসলিম নারীদের জন্য শালীন পোশাক ‘বুরকিনি’ নিয়ে আসে এবং তাদের এই উদ্যোগের পরেই বিদ্যালয়ে হিজাব যোগানের উদ্যোগটি নেয়া হয়।

যুক্তরাজ্যের বাকিংহাম শহরের শিক্ষা কেন্দ্রের প্রধান এল্যান স্মিথার্স বলেন, ‘বাজারের চাহিদা অনুযায়ী প্রতিক্রিয়া দেখানোর অধিকার এম এন্ড এসের রয়েছে। কিন্তু বিদ্যালয়ের ইউনিফরম হিসেবে হিজাবকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এটি দেখে আমি বিস্মিত, কারণ আমরা বিদ্যালয়ে সবার জন্য একটি সাধারণ মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠা করতে চাই। হিজাব শিশুদেরকে আলাদা করতে পারে।’

এম এন্ড এসের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা প্রায় ২৫০টি বিদ্যালয়ের জন্য তাদের চাহিদা অনুযায়ী ইউনিফরমের যোগান দিয়ে থাকি। এ বছর বেশ কয়েকটি বিদ্যালয় হিজাব সরবরাহ করার জন্য আমাদের প্রতি অনুরোধ জানায়। আমরা তাদের অনুরোধে সাড়া দিয়ে এসব হিজাব সরবরাহ করছি।’

LBC রেডিও এর উপস্থাপক এবং ‘Quilliam Foundation’ এর প্রতিষ্ঠাতা মাজিদ নেওয়াজ বলেন- ‘ছোট ছোট মেয়ে শিশুদেরকে বলা হচ্ছে যে, তাদের চুল প্রদর্শন করাটা একটি অশালীন কাজ।’

তিনি আরো বলেন- ‘শুধুমাত্র সৌদি আরব এবং ইরানের নারীদের জন্য সেদেশসমূহের আইন অনুযায়ী হিজাব পরিধান করা বাধ্যতামূলক। এটি নারীদের প্রতি একটি বর্ণবৈষম্য মূলক আচরণ। তবে এম এন্ড এসের অবশ্যই অধিকার রয়েছে তা বিক্রয় করার। কিন্তু আমি মনে করি তারা এটি চালিয়ে যাবে না।’

সূত্রঃ দ্যা টেলিগ্রাফ ।

Leave a Reply