উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশে আঘাত হেনেছে তিতলি

আন্তর্জাতিক

দিল্লি: ভারতের উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের উপকূলে আঘাত হেনেছে বঙ্গোপসাগর থেকে উঠে আসা শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’। বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৬টায় প্রতি ঘণ্টায় ১২৬ কিলোমিটার গতিবেগ নিয়ে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড়টি।

উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের বহু এলাকায় স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া দপ্তর তাদের সতর্কবার্তায় ঘূর্ণিঝড় তিতলিকে ‘অত্যন্ত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়’ হিসেবে বর্ণনা দিয়েছে।

আবহাওয়া দপ্তরের বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, উপকূলে দুই থেকে তিন ঘণ্টা অবস্থান করে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, উড়িষ্যার গোপালপুরে আছড়ে পড়ার সময় ঝড়ের গতি ছিল প্রতি ঘণ্টায় ১০২ কিলোমিটার। অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলামে এই গতিবেগ ছিল ১৪০-১৬০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। এটির বাতাসের গতি আরো বাড়ছে এবং ঘূর্ণিঝড়টি আরো ১৮ ঘণ্টা সক্রিয় থাকতে পারে বলে ধারণা করছে দেশটির আবহাওয়া দপ্তর।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল, উড়িষ্যার গোপালপুর এবং অন্ধ্রপ্রদেশের কলিঙ্গপত্তনমে ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার বেগে আছড়ে পড়ার কথা তিতলির। আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা যায়, আগামী ১৮ ঘণ্টায় আরও শক্তি বাড়াবে ওই ঘূর্ণিঝড়। কাল শুক্রবার ভোরে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে সরে গোপালপুর ও কলিঙ্গপত্তনমের ওপর দিয়ে উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশ পেরোবে।

এর পর ফের একই জায়গায় ঘুরে এসে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের দিকে সরে যাবে। সেখানে পৌঁছে ধীরে ধীরে শক্তি কমবে ঝড়ের।

এদিকে দেশের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৪ নম্বর স্থানীয় হুশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার সব নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় প্রাথমিকভাবে দেখা গিয়েছিল, ঘূর্ণিঝড়ের অভিমুখ রয়েছে উত্তর-পশ্চিম দিকে। উত্তর-পশ্চিম অভিমুখে অগ্রসর হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ অন্ধ্র-উড়িষ্যা উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে বলে জানিয়েছিলেন আবহাওয়াবিদরা। কিন্তু গত কয়েক ঘণ্টায় উত্তর দিকে অগ্রসর হয়েছে তিতলি। ফলে আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা আরও ঘনীভূত হচ্ছে।

সর্বশেষ আবহাওয়া অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলঘ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ আরও ঘনীভূত হয়ে হারিকেনের তীব্রতা সম্পন্ন প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। সমুদ্রবন্দরসমূহকে চার নম্বর স্থানীয় হুশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) জানায়, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করার খবর পাওয়া যায়।

Leave a Reply