আশা করছি আরিফ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে আমাকে সমর্থন দিবেন : সেলিম

সিলেট বিভাগ
৮ জুলাই ২০১৮, রোববার : সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন না দলের মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম। দলের মনোনয়ন বঞ্চিত এই নেতা নাগরিক কমিটির ব্যানারে নির্বাচনে লড়বেন। আরিফুলকে দলের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়ে তার প্রতি অন্যায় করা হয়েছেও বলেও দাবি করেন সেলিম।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের ঠিক একদিন আগে রোববার দুপুরে নগরীর একটি অভিজাত হোটেলের হলরুমে জরুরী সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এ ঘোষণা দেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি দলের সমর্থন চেয়ে বলেন, ‘আমি আশাবাদী দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। তারা আরিফুল হক চৌধুরীর মনোনয়ন বাতিল করে দলের নেতাকর্মীর প্রত্যাশানুযায়ী আমাকে সমর্থন দেবেন। দল যদি সমর্থন নাও দেয় তবুও আমি সিলেটবাসীর খেদমতে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো। নগরবাসী ও দলের তৃণমূল কাকে চায় ৩০ জুলাই সেটির ফায়সালা হবে।’

লিখিত বক্তব্যে বলেন, ১৯৭৮ সালে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া জাগদলের সদস্য হিসেবে রাজনীতি শুরু করেছি। পরে ছাত্রদলের জেলা সভাপতিসহ বিএনপি’র গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে আসছি, এখনও করে যাচ্ছি। দীর্ঘ প্রায় ৪ দশক ধরে নিষ্টার সাথে দলের নির্দেশ মেনে এসে কোনদিন ব্যতয় করিনি। এবার না হয় আমি দলের নির্দেশ অমান্য করলাম; কোনভাবেই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবো না। সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি, তৃণমূল নেতাকর্মীরা আমার সাথে রয়েছেন। নগরবাসী আমার সাথে রয়েছেন।’

সেলিম বলেন, ‘মেয়রপদে নির্বাচন করার লক্ষে আমি দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে যাচ্ছি। দল থেকে আমাকে মনোনয়নের সম্ভাবনাও ছিল। দলীয় হাইকমান্ড একটি নির্বাচনী সাক্ষাৎকার পর্বের ব্যবস্থা করেছিল, সেখানে দলীয় ৬ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে ৫ জনই আরিফুল হক চৌধুরীকে মনোনয়ন না দেওয়ার ব্যাপারে জোর দাবী জানান। এই ৫ জনই আমাকে সমর্থন জানান। তদুপরি ৯ মাস পূর্বে বিএনপি সিলেট মহানগর সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ২৭টি ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দের সম্মতিতে একটি স্মারকলিপি দলীয় চেয়ারপারসন, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, স্থায়ী কমিটির সকল সদস্য ও মহাসচিবকে প্রদান করা হয় যাতে আরিফুল হক চৌধুরীকে দলীয় মনোনয়ন না দেওয়ার পক্ষে যুক্তিসঙ্গত বক্তব্য ছিল। তারপরও আরিফুল হক চৌধুরীকে মনোনয়ন দেয়া হল। এটি অন্যায় করা হয়েছে।’

সংবাদ সম্মেলনে সেলিম ৩৯ বছরের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার আলোকে এ সিলেট নগরীকে আধ্যাত্মিক, প্রবাসী অধ্যুষিত একটি তিলোত্তমা নগরী গড়ে তোলবেন বলে প্রত্যাশা রাখেন। এসব নিয়ে বিস্তারিত আমি নির্বাচনের ইশতেহারে তুলে ধরবেন বলেও উল্লেখ করেন।

Leave a Reply