খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারের : ডাঃ বদরুদ্দোজা চৌধুরী

রাজনীতি

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি ডা. অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী।

রবিবার তোপখানারোডস্থ শিশু কল্যাণ মিলনায়তনে বাংলাদেশ জনদল আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সরকারকে মনে রাখতে হবে বেগম জিয়ার কিছু হলে তাদের মুক্তি নাই। এজন্য বিশেষ কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে তার দায় সরকারকেই বহল করতে হবে।

ডা. অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারের। সরকারকে মনে রাখতে হবে তিনি দেশের একজন সম্মানিত প্রবীণ নাগরিক। দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলেরও প্রধান।

বি চৌধুরী বলেন, গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও মানবতা যেখানেই সঙ্কটে পড়ছে আমরা সেখানেই কথা বলব, প্রতিবাদ করব। সেটা কার পক্ষে বা বিপক্ষে গেল সেটি বড় বিষয় নয়।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, বিরোধী দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে জেলখানায় আটক রাখা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে কী করে একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হবে?

সাবেক এই বিএনপি নেতা বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রশ্ন উঠলে এই সরকারের মন্ত্রীরা বলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংবিধানে নাই। অথচ তারাই মাত্র ১৫ মিনিটে দেশে একদলীয় শাসন কায়েম করেছিলেন।

তিনি আরো বলেন, অন্যদিকে আমি যখন সংসদে উপনেতা ছিলাম সেসময় ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর একদিনে তাদের (আওয়ামী লীগ) দাবি বাস্তবায়ন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করি এবং মাত্র চার মাসের মধ্যে নতুন নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করেছিলাম।

অংশগ্রহণমূলক ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে জাতীয় নির্বাচনের ১০০ দিন পূর্বে সংসদ ও মন্ত্রিসভা ভেঙে দিয়ে নির্দলীয় সরকার বা জাতীয় সরকার গঠনের আহ্বান জানান বি চৌধুরী।

নাগরিক ঐক্য আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, গত পাঁচ দিন যাবৎ সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ আর সরকার তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করছেন না এটি অমানবিক। কেন তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হলো না জাতি প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চায়।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, এই সরকার যে বাজেট পেশ করেছে তা ব্যাংক ডাকাত আর চোরদের জন্য করেছে। ব্যাংক ডাকাত আর চোরদের জন্য করা বাজেটে জাতির মুক্তি হবে না।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, অন্য দেশের সনদ নিয়ে যারা দেশ পরিচালনা করতে চান তাদের দিয়ে আর যাই হোক দেশের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে না। পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজন গণআন্দোলন।

আবদুল মালেক রতন বলেন, ১০ বছরে কারা শেয়ারবাজার লুট করেছে, হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে, তাদের গুলি করে হত্যার কোনো ব্যবস্থা নেই। অথচ দশটা ইয়াবার ব্যবসায়ী বা বহনকারীদের গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূইয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, তাকে যে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে এটা এক ধরনের নির্যাতন। সেখানে তিনি দিন দিন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। সুচিকিৎসাও দেওয়া হচ্ছে না। তাঁকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। সেজন্য সরকারকে দায়-দায়িত্ব বহন করতে হবে।

গোলাম মোস্তফা ভূইয়া বলেন, ‘আমরা খবর পেয়েছি তার মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছিল। সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। আমরা সরকারকে বলব, তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। তাকে মুক্তি দেওয়ার ব্যবস্থা করুন।’

জনদল সভাপতি এম শাহজাহানের সভাপতিত্বে এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, লেবার পার্টির (একাংশ) মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, সোনার বাংলা পার্টির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ হারুন-অর-রশিদ, জনদলের ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাশক আমিনুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব সেলিম আহমেদ, হারুনুর রশিদ, মাওলানা সাইদুর রহমান প্রমুখ।

Leave a Reply