লন্ডন ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপি এখন হতাশায় ভুগছে : কাদের

রাজনীতি

কোটা সংস্কারে প্রধানমন্ত্রীর সাহসী ঘোষণায় লন্ডন ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপি এখন হতাশায় ভুগছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ভুলতা এলাকায় ফ্লাইওভারের কাজ পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, ‘শোনেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ঘিরে এ দেশের রাজনৈতিক একটা মতলবি মহলের ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় তারা এখন নিদারুণভাবে হতাশ এবং প্রধানমন্ত্রীর সাহসী ঘোষণায় লন্ডন ষড়যন্ত্র এই কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ঘিরে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী সময়োচিত ঘোষণার পর, আজকে লন্ডন থেকে কোটা আন্দোলনকে রাজনৈতিক আন্দোলনে রূপ দিয়ে, তাদের এত দিনের ব্যর্থতার পর ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের যে অপচেষ্টা, সে অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। ভণ্ডুল হয়েছে। লন্ডন ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপি এখন নিদারুণভাবে হতাশায় ডুবে আছে।’

কোটা সংস্কারে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর একটা যুক্তিযুক্ত সমাধান পাওয়া যাবে বলে জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘নতুন কিছু করতে হলে বিদ্যমান যে ব্যবস্থা, তা বাতিল করাই ছিল সময়োচিত পদক্ষেপ। প্রধানমন্ত্রী সঠিক সময়ে সঠিক কাজটি করেছেন। নতুন করে এই ব্যবস্থাকে বিন্যাস করতে হলে, এটা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে। এটা আমরা আগেও বলেছি। কেবিনেট সচিবের নেতৃত্বে একটা কমিটি এই বিষয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে; ন্যায়ভিত্তিক, যুক্তিভিত্তিক একটা সমাধানে আসবে।’

রূপগঞ্জের ভুলতা বাণিজ্যিক এলাকায় ২৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি ফ্লাইওভারের কাজ চলছে। ফ্লাইওভার দুটির দৈর্ঘ্য যথাক্রমে ২ দশমিক ১৩ ও ১ দশমিক শূন্য ৮৪ কিলোমিটার।

চলতি বছরের শেষে সেতু দুটির কাজ সম্পন্ন হলে আর যানজট থাকবে না বলে দাবি করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি চালকদের সহনশীল হওয়ার আহ্বান জানান। কাদের বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৩৭টি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু তা কেউ ব্যবহার করে না।’

আরও পড়ুন….
ঢাবি উপাচার্যের বাসভবন পরিদর্শনে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
রবিবার দিবাগত রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আখতারুজ্জামানের বাসভবন হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা সরেজমিন পরিদর্শনে গেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে তিনি সেখানে পৌঁছান বলে জানা গেছে।

এর আগে সোমবার রাতে তিনি জানান, যারা রবিবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা চালিয়েছে তাদের কঠিন শাস্তি পেতে হবে।

এদিকে সরকারের আশ্বাস সত্ত্বেও আন্দোলন স্থগিতের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের একটি অংশ। তারা মঙ্গলবার রাত থেকে শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল ও বাংলা একাডেমি এলাকায় অবস্থান করে স্লোগান দিচ্ছেন।

আন্দোলনকারীদের এই অংশটি বলছে, সব শিক্ষার্থী আন্দোলন স্থগিতের সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত নন। তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। বেলা ১১টার দিকে তারা অবস্থানে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

এরই মধ্যে ঢাবি উপাচার্যের বাসভবন পরিদর্শনে গেলেন।

বিদ্যমান কোটার বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে—সরকারে এমন আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলন আগামী ৭ মে পর্যন্ত স্থগিত করেন আন্দোলনকারীদের একাংশ। সোমবার বিকেলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে সরকারের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সচিবালয়ে আন্দোলনকারীদের প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টা বৈঠকের পর এ সিদ্ধান্ত আসে।

বৈঠকের পর ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কোটা সংস্কারের ব্যাপারে সরকার অনড় অবস্থানে নেই। আমরা তাদের দাবির যৌক্তিকতা ইতিবাচকভাবে দেখি।’

এমন তাণ্ডব কখনো দেখিনি, হামলাকারীরা ছাত্র হতে পারে না: ঢাবি উপাচার্য
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে সোমবার প্রথম প্রহরে (রাত ২টা) আগুন ধরিয়ে দিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়েছে। এতে ভিসি’র বাসভবনের কিছুই অবশিষ্ট ছিল না।

সব কিছুই তছনছ করে দেওয়া হয়েছে। এ দৃশ্য দেখে নির্বাক হয়ে গেছেন অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, হামলাকারীরা ছাত্র হতে পারে না। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র না, মুখোশধারী-বহিরাগত। আর কারা হামলা করেছে, তা আপনারা জানেন, দেখেছেন।

তিনি আরো বলেন, অনেক আন্দোলন দেখেছি। কিন্তু এমন তাণ্ডব দেখিনি। হত্যার পরিকল্পনাই ছিল হয়তো। নইলে বেডরুমে ঘুমন্ত মানুষগুলোর ওপরে এভাবে হামলা হতে পারে না। ওরা কিছুই আর অবশিষ্ট রাখেনি। ঘরে পা রাখারও উপায় নেই।

তিনি বলেন, কোটা সংস্কার সম্পূর্ণ সরকারের এখতিয়ার। আমরা এখানে কিই-বা করতে পারি। এই ঘটনার দুঃখ জানানোর ভাষা নেই।

এদিকে মধ্যরাতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ধাওয়া দিয়ে টিএসসির ভেতরে ঢুকিয়ে দিয়েছেন ছাত্রলীগের কর্মীরা। পরে র্যা ব এবং পুলিশের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

Leave a Reply