কুমিল্লায় নাশকতার মামলায় খালেদা গ্রেপ্তার, জামিন আবেদনের শুনানি মঙ্গলবার

জাতীয়

কুমিল্লা : কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে আট যাত্রী হত্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। জামিন আবেদনের শুনানি মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হবে।

রবিবার কুমিল্লা ৫ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক মুস্তাইন বিল্লাহ এই আদেশ দেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাইয়ুমূল হক রিংকু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে ২০ দলীয় জোটের অবরোধের সময় চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারে দুর্বৃত্তরা। এতে আটজন যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান, আহত হন ২০ জন। এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান বাদী হয়ে খালেদা জিয়াসহ ৭৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় ছয়জন নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়। ৭৭ জন আসামির মধ্যে তিনজন মারা যান, পাঁচজনকে চার্জশিটকে থেকে বাদ দেওয়া হয়। খালেদা জিয়াসহ অন্য ৬৯ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা আদালতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক ফিরোজ হোসেন গত ২ জানুয়ারি চার্জশিট দাখিল করেন।

এ মামলায় ৬৯ জন আসামির মধ্যে খালেদা জিয়াসহ ৪৭ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা আছে। এর মধ্যে জামিনে আছেন ২৯ জন আর জেলহাজতে রয়েছেন একজন।
গত ২৮ মার্চ পূর্বনির্ধারিত তারিখে কুমিল্লার আদালতে হাজির না হওয়ায় খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের করা জামিনের আবেদন শুনানি হয়নি। ওইদিন তাকে আদালতে হাজির না করায় সাতদিনের মধ্যে ব্যাখ্যা চেয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়।

এর আগে ১২ মার্চ আইনজীবীদের করা খালেদা জিয়ার হাজিরা পরোয়ানা (প্রোটেকশন ওয়ারেন্ট) প্রত্যাহার ও গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জামিন আবেদনের শুনানির দিন ২৮ মার্চ ধার্য করে খালেদা জিয়াকে হাজিরার নির্দেশ দেন আদালত।

আরও পড়ুন…..
কারাবন্দি খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা
অনেক আলোচনা আর সমালোচনার পর ঢাকা মেডিকেলের চার চিকিৎসকের সমন্বয়ে গঠিত মেডিকেল বোর্ড কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছে।

জানা যায়, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ঢাকা মেডিকেল কলেজের ৪ প্রফেসরের বিশেষ বোর্ড গঠন করেছে কারা কর্তৃপক্ষ।

প্রফেসরগণ হলেন, মো:সামসুজ্জামান (অর্থোপেডিক্স) মনসুর হাবীব (নিউরোলজি), টিটু মিয়া (মেডিসিন), সোহেলী রহমান (ফিজিকেল মেডিসিন)।

কারা সূত্র জানিয়েছে, দুপুর ১টা ১৫ থেকে প্রায় ১ ঘন্টা বোর্ড সদস্যরা কারাগারে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন।

এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া হঠাৎ কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়ার খবরে সারাদেশে দলটির নেতাদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। দলটির নেতাদের সাক্ষাতের সুযোগ না দেয়ায় তাদের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে এক প্রকার অন্ধকারেই আছেন তারা। আর এরই মধ্যে সরকারের অন্যতম নীতি নির্ধারকের পক্ষ থেকেও বক্তব্য এসেছে। সরকার বিষয়টি নিয়ে শঙ্কিত হবার মতো কিছুই দেখছে না।

তবে সরকারের আশ্বাসের পরেও বিএনপির কারাবন্দী নেত্রী খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে দলটি।

শুক্রবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী খালেদা জিয়া এখন অসুস্থ। অবিলম্বে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি। খবর বিবিসির।

তিনি বলেন, তার ব্যক্তিগত যে চিকিৎসক রয়েছেন, সেই ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে যে অবস্থায় রাখা হয়েছে, তাতে তার স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে বলে তারা আশঙ্কা করছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার সব চিকিৎসা যেহেতু দেশের বাইরে হয়েছে, সেজন্যে তাকে জামিন দিয়ে চিকিৎসার জন্য বাইরে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

পরে অবশ্য আবার তিনি একথার ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, কারামুক্তির পর খালেদা জিয়া নিজেই সিদ্ধান্ত নেবেন দেশে নাকি বিদেশে চিকিৎসা করাবেন।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার খালেদা জিয়াকে একটি দুর্নীতির মামলায় আদালতে আনার কথা ছিল। কিন্তু সেদিন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জানান, অসুস্থতার কারণে তাকে আদালতে হাজির করা যায়নি।

এরপর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ২৯ মার্চ বৃহস্পতিবার কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তাকে জানানো হয়, খালেদা জিয়া অসুস্থ, তাই সাক্ষাৎ করা যাবে না।

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিএনপির দাবির জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, যদি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দরকার হয়, সরকার অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে। এখানে কোনো রকমের দ্বিধা-দ্বন্দ্বের ব্যাপার নেই।

‘খালেদা জিয়া জেলে আছেন বলে সরকার তার প্রতি অমানবিক আচরণ করতে পারে না। আমাদের সরকার সেরকম সরকার নয়।’

তিনি আরও বলেন, চিকিৎসকরা যদি বলেন যে দেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সম্ভব নয়, সেক্ষেত্রে তাকে বিদেশেও পাঠানো যেতে পারে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জোর গলায় বলছেন খালেদা জিয়া জেলে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি যদি অসুস্থ থাকেন তাহলে তার সুচিকিৎসার জন্য সরকার সব ধরনের ব্যবস্থা করবে।

তিনি আরো বলেন, চিকিৎসক যদি মনে করেন তাকে বিদেশ পাঠানো দরকার তবে তাকে বিদেশেই পাঠানো হবে।

এদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সরকার বলছে খালেদা জিয়া অসুস্থ। কিন্তু তার স্বাস্থ্যের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে আমরা কিছুই জানি না। আমাদেরকে কোনো তথ্য দেওয়া হচ্ছে না। দেখা করতে চাইলে সেটাও দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, আমরা তার অসুস্থতা সম্পর্কে জানলামই না এদিকে ওবায়দুল কাদের বলে ফেললেন বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সরকারের এ ধরনের বক্তব্যে জনগণের মনে প্রশ্ন জেগেছে।

বিএনপির সিনিয়র এই নেতা বলেন, জনগণকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে হলে বেগম জিয়াকে কারাগারে রাখতে হবে। সরকার এই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু লাভ হবে না। কারণ জনগণ এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে দেবে না।

কুমিল্লায় খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন গোপালগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। তিনি বলেছেন, ‘এহন একটা ভান ধরছে অসুখ হইছে। একটা ভান ধরছে। এটা বলে অসুখ? কী অসুখ? আর যে মানায় না। আর কষ্ট করতে চায় না। আরে যে মানুষের যে এতিমের টাকা মাইরা খাইসো, ওই কষ্ট তো তোমাকে করতেই হবে। আল্লাহর তরফ থেকে তোমার কষ্ট হবে। এতিমের টাকা মারলে আল্লাহর আরশ কাইপা উঠে। এহন কয়, উনি অসুস্থ। চোরের আবার অসুস্থ। চোর অসুস্থ হইলে অন্য চোরকে যেভাবে চিকিৎসা করা হয়, তোমাকেও সে রকম চিকিৎসা করা হবে, ভিন্ন চিকিৎসা হবে না।’

এ প্রসঙ্গে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সরকারের ভাব-ভঙ্গি আর কথাবার্তার উচ্ছৃঙ্খলায় আমরা শঙ্কিত। জনগণ এই সরকারের কোনো কথায় বিশ্বাস করতে পারছে না। আমরা বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে আতঙ্কিত এবং শঙ্কিত।

অবশ্য কারা চিকিৎসক মাহমুদুল হাসান বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাতকারে রাতে বলেছেন, ‘উনি (খালেদা জিয়া) ভালো আছেন। ওনার ব্লাড প্রেশার স্বাভাবিক আছে। ব্লাড সুগার স্বাভাবিক আছে। ওনার হাঁটুতে সমস্যা ছিল, যে কারণে হাঁটতে কষ্ট হয়। এই সমস্যা আগে থেকেই ছিল। এটা ছাড়া আর কোনো সমস্যা নাই।

Leave a Reply