বিশ্বনাথে বাড়ির রাস্তায় প্রবাসীর দেয়াল নির্মাণ, গৃহবন্দী পরিবার

সিলেট বিভাগ

সিলেটের বিশ্বনাথে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বাড়িতে প্রবাসী কর্তৃক দেয়াল নির্মাণ করে প্রতিবেশীর চলাচলের রাস্তা বন্ধ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে ঐ পরিবার গৃহবন্ধি হয়ে পড়েছেন। উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের সাতপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে।
সাতপাড়া গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার পুত্র মোঃ কাওছার অভিযোগ করেন, তিনি ও তার প্রতিবেশী মৃত সোনাফর আলীর পুত্র যুক্তরাজ্য প্রবাসী কবির মিয়া একই বাড়ির বাসিন্দা। জায়গা-জমি নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। সম্প্রতি কবির মিয়া দেশে এসে বাড়িতে দেয়াল নির্মাণ করার পায়তারা করলে আদালতে অভিযোগ করেন কাওছার (বিশ্বনাথ বিবিধ মামলা নং- ১৪/১৮)। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১ মার্চ বিরোধপূর্ণ জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করে উভয় পক্ষকে নোটিশ প্রদান করেন বিশ্বনাথ থানার এসআই রফিকুল ইসলাম। কিন্ত ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে শুক্রবার (১৬মার্চ) দেয়াল নির্মাণ করে তাদের (কাওছার) চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি বন্ধ করে দেন প্রবাসী কবির মিয়া। তিনি অভিযোগ করেন, ইতিমধ্যে তাদের বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ, ঢাকা যাত্রাবাড়ি ও আদলতে ডাকাতি, চাঁদাবাজী এবং মাদকদ্রব্য আইনে ৭টি মামলা দায়ের করেন কবির মিয়া। এমনকি থানা পুলিশও মামলার অভিযুক্ত থেকে রেহাই পায়নি। এসব মামলা থেকে তারা অব্যাহিত পেয়েছেন। দেয়াল নির্মাণ করার বিষয়টি তাৎক্ষণিক থানা পুলিশকে অবহিত করা হলেও প্রশাসন কর্তৃক কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি বলে তিনি অভিযোগ করেন। বাড়ির চলাচলের একমাত্র রাস্তায় দেয়াল নির্মাণ করায় শুক্রবার বাড়ির লোকজন মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যেতে পারেননি। তারা গৃহবন্ধি হয়ে পড়েছেন। ছেলে মেয়েদের বিদ্যালয়ে যাওয়াও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
প্রতিপক্ষের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রবাসীর সঙ্গে কথা বলতে তার বাড়িতে গেলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন এবং সাংবাদিকদের তাড়িয়ে দিতে বলেন। এসময় তিনি নিজ ঘরে প্রবেশ করে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেন।
এব্যাপারে দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমির আলী বলেন, দেয়াল নির্মাণ করে কারো চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়া কাম্য নয়। বিষয়টি শুনে আমি তাৎক্ষণিক স্থানীয় ওয়ার্ডের মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে ঘটনাস্থলে প্রেরণ করি। কিন্ত তাদের কথায় কর্ণপাত করেননি প্রবাসী কবির মিয়া।
বিশ্বনাথ থানাও অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মো. শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, বিষয়টি আমরা প্রতিবেদনের মাধ্যমে আদালতকে জানাবো। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply