নির্বাচনে জিতে প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন খালেদা : যুক্তিতর্কে বিচারককে মওদুদ

রাজনীতি

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের সময় তার আইনজীবী মওদুদ আহমদ বিচারককে বলেন, আগামী নির্বাচনে জিতে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৩৬ মিনিটে খালেদা জিয়া পুরান ঢাকার বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসায় স্থাপিত বিশেষ আদালত-৫ এ পৌঁছান। এরপর আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ যুক্তিতর্ক শুরু করেছেন।

এর আগে যুক্তি উপস্থাপন করেন রেজ্জাক খান, খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী ও জ‌মিরউদ্দিন সরকার। এই মামলায় আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপনে আরও দুটি দিন পাবেন তার আইনজীবীরা। তবে খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন আজই শেষ হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেত্রীর আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া।

মওদুদ আহ‌মদ আদালতে বলেন, ‘এই মামলায় খালেদা জিয়ার কোন ক্ষ‌তি হবে না, বরং উনার জন‌প্রিয়তা আরও বাড়বে। উনি পরবর্তী নির্বাচ‌নে প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন।’

মওদুদ পাকিস্তান আমলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরদ্ধে দুর্নীতির মামলার উদাহরণও দেন আদালতে। বলেন, ‘‌বিরোধীদলের রাজনী‌তিকে নি‌শ্চিহ্ন করার জন্য মামলা করা হয়।’

পরে মওদুদ উদাহরণ দেন সাউথ আফ্রিকার বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার। বলেন, ‘বিশ্বের বহু নেতার বিরু‌দ্ধে মামলা করা হয়েছে।’

মওদুদ উদাহরণ হিসেবে বিশ্ব বরেণ্য এই নেতাদের পাশাপাশি তার কথাও উল্লেখ করেন। বলেন, ‘মামলা আমার বিরুদ্ধেও হয়েছে। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার দুই নেত্রী‌কে মাইনাস করার জন্য এসব মামলা দেওয়া হয়ে‌ছিল।’

তত্ত্ববধায়ক সরকা‌রের সময় নিজের এক‌টি ঘটনার কথা উল্লেখ করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘আমায় জেলখানায় নেওয়া হয়েছিল, সেখানে তো আর ঘুম ধ‌রে না,‌ এক‌দিন রাতে আমার চোখ বেঁধে ফেলা হলো, বলা হলো বড় সাহেবের কা‌ছে আপনা‌কে যেতে হবে, এরপর সেখানে নিয়ে যাওয়া হলো। তারা আমাকে জানাল , দুই নেত্রীকে বিদেশে পা‌ঠিয়ে দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমি জানতে চাইলাম তারা যেতে না‌ চাইলে কী করবেন। তখন তারা বলল, তাহলে তা‌দের বিরু‌দ্ধে মামলা করা হবে। বিদেশ যেতে একজন রাজি হলেন, অন্যজন হলেন না।’

এদিকে খালেদা জিয়ার হাজিরা ঘিরে আদালত ও এর আশপাশের এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। বিপুল সংখ্যক পুলিশ র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া আদালতের প্রধান ফটকে স্ক্যানার বসিয়ে তল্লাশি করে ভেতরে ঢোকানো হচ্ছে।

এর আগে, ১১ জানুয়ারি ৯ম দিনের মত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার। এ দিন তার যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আগামী ১৬, ১৭ ও ১৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন আদালত।

অপরদিকে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাতেও যুক্তি উপস্থাপনের জন্য একই দিন ধার্য করেন আদালত।

১৯ ডিসেম্বর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়। এ দিন রাষ্ট্রপক্ষ খালেদা জিয়াসহ সব আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়ে যুক্তি উপস্থাপন শেষ করেন। এরপর ২০, ২১, ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর এবং ৩ , ৪, ১০ ও ১১ জানুয়ারি খালেদার পক্ষে যুক্ত উপস্থাপন করেন তার আইনজীবীরা।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট রাজধানীর তেজগাঁও থানায় একটি মামলা করে দুদক। আর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রাজধানীর রমনা থানায় অপর মামলাটি দায়ের করা হয়।

এ ছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর একটি মামলা করে দুদক।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মালমায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমার ছাড়া বাকি আসামিরা হলেন-মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যাসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

Leave a Reply