খালেদাকে কারাগারে দেখতে চান ইনু

রাজনীতি

খালেদা জিয়াকে কারাগারে দেখতে চেয়ে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ভোটে আসবে কি আসবে না এটা নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যথা নেই। তিনি (খালেদা) ভোটে আসলেই কি আর না আসলেই কি।

তিনি বলেন, আমি বেগম খালেদা জিয়াকে দেখতে চাই পোড়া মানুষদের খুনের জন্য কারাগারে। বাংলাদেশে আর রাজাকার সমর্থিত সরকার আসবে না।

মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে মাওলানা ভাসানীর ১৩৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

সংগঠনের চেয়ারম্যান এসএম আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

জাসদ সভাপতি বলেন, নির্বাচন রুটিন কাজ এটা নিয়ে মাথা ব্যথার কোন কারণ নেই। পাঁচ বছর পরপর ভোট আসবে জনগণ ভোট দেবে। কে ক্ষমতায় গেল আর কে গেল না এটা বড় কথা নয়, বড় কথা হচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতি খুনি মুক্ত হবে কিনা, দুর্নীতি মুক্ত হবে কিনা সেটার সিদ্ধান্ত নিতে হবে। খালেদা হচ্ছে সকল খুনিদের সিন্ডিকেট প্রধান।

ইনু বলেন, বিএনপি হচ্ছে জঙ্গি উৎপাদন এবং পুনরুৎপাদনের কারখানা। রাজাকারদের রক্ষক খুনিদের পুনর্বাসনের আস্তানা। ৭১, ৭৫ এর খুনি, ২১শে আগস্টের খুনি জঙ্গি তাণ্ডবের জঘন্য খুনিদের ঠিকানা এবং আস্তানা বিএনপি।

মন্ত্রী বলেন, জঙ্গি যদি খারাপ হয় জঙ্গির সঙ্গী খালেদা জিয়া কেন ভাল হবে? যারা খালেদা সঙ্গে মিটমাট করার চেষ্টা করছেন তার পিট চাপড়াচ্ছেন তারা প্রকারান্তে জঙ্গিদের সঙ্গে মিটমাট করার চেষ্টা করছেন, জামায়াতের সঙ্গে মিটমাট করার চেষ্টা করছেন। গণতন্ত্রে রাজাকার জঙ্গি জামায়াত আর তার সঙ্গী হচ্ছেন খালেদা জিয়া।

গণমাধ্যম বন্ধে দুঃখিত ইনু বললেন, ‘উপায় ছিল না’
ঢাকা: গণমাধ্যম বন্ধ নিয়ে এই প্রথম জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তবে তিনি বলেছেন, ‘সে সময়ে এর বিকল্প আর কোন উপায় ছিল না।’

রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন আয়োজিত ‘রুপসীবাংলা’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ইনু একথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘দিগন্ত টিভি, ইসলামিক টিভি ও আমার দেশ পত্রিকা খুলে দেওয়ার ব্যাপারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। আপনারা পারলে তাদের (বন্ধ গণমাধ্যমকে) গোলাপজল দিয়ে ধুয়ে মুছে শুদ্ধ করুন।’

তথ্যমন্ত্রী জানান, ‘এসব প্রতিষ্ঠান বন্ধে আমি একা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এমন ভাববার কারণ নেই। সরকার এবং প্রশাসন মিলেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

বিএনপির মধ্যবর্তী নির্বাচন দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সবাইকে নিয়ে আমরা নির্বাচন করতে চাই। তবে এর আগে দেশ থেকে জঙ্গিবাদ দূর করতে হবে। জঙ্গিবাদ মুখে মুখে দূর হবে না। তার জন্য একটি জাতীয় চুক্তি হওয়া প্রয়োজন। সে চুক্তিতে যারা ঐক্যমতে পৌঁছবে, তাদের নিয়ে যে কোন সময় নির্বাচন করা যাবে।’

ইনু বিকৃতির হাত থেকে ইতিহাসকে বাঁচাতে ফটোসাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে জানিয়ে তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড সুরাহা না হওয়ায় আমি সত্যিকার অর্থেই দুঃখিত। তবে বহু বছর পর অন্যান্য হত্যাকাণ্ডের বিচার এ সরকার করেছে। সুতরাং আমি আশাবাদী সাগর-রুনি হত্যারও বিচার এদেশে একদিন হবেই।

জাসদ সভাপতি বলেন, দেশবাসীর সামনে সাগর-রুনির খুনিদের মুখোশ উন্মোচন করবই। খুনিদের আড়ালের কোন প্রচেষ্টায় ইনু জড়িত থাকবে না, এটার নিশ্চয়তা আপনাদের আমি দিচ্ছি।

Leave a Reply