সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলে সভাপতি পদে যাদের যোগ্য মনে করে তৃণমূল

সিলেট বিভাগ

আজাদ আহমদ : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও আন্দোলনকে সামনে রেখে দ্রুত অঙ্গ সংগঠন নতুনভাবে সাজাচ্ছে বিএনপি। বিভিন্ন জেলাতে ছাত্র ও যুবদলের কমিটি নতুন করে গঠন করা হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে চলতি মাসেই সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের নতুন কমিটি ঘোষণা দেয়া হবে বলে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড সুত্রে জানা গেছে। আসন্ন এ দুই কমিটিতে সভাপতি পদে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছেন বর্তমান সিলেট জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক মামুনুর রশিদ ও মহানগরে আব্দুল আজিজের নাম।

সভাপতি প্রার্থীদের সম্পর্কে খোঁজ নিতে গেলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা বলেন ,স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ১৯ দফা কর্মসূচীর প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস, দেশনেত্রী ও তিন তিন বারের সফল সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি পূর্ণ বিশ্বাস ও আস্থা, যে কোন আন্দোলনে রাজপথে থাকবে, গনতান্ত্রীক আন্দোলনে রাজপথ ছাড়বেনা এবং পিঠ দেখিয়ে পালিয়ে যাবেনা, এমন নেতাকেই আগামী জেলা ও মহানগর যুবদলের সভাপতি হিসাবে দেখতে চাই। সেই সাথে আগামী দিনের রাষ্ট্র নায়ক কেন্দ্রীয় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যন তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস থাকতে হবে। আগামী দিনের কমিটিই কেবল পারবে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশে হারিয়ে যাওয়া গনতন্ত্র পূণঃউদ্ধার করতে। মামুন রশিদ ও আব্দুল আজিজ বিগত দিনে আন্দোলন-সংগ্রামে রাস্তায় ছিলেন। কেন্দ্রের নির্দেশে দলীয় কর্মকান্ডও পালন করেছেন নিয়মিত। নতুন পদ প্রত্যাশীদের অন্য কাউকে সরকার বিরোধী আন্দোলনে রাস্তায় নেতাকর্মীরা দেখতে পায়নি বলে অভিযোগ তৃণমূলের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবদল নেতা বলেন, ‘যারা কমিটি গঠনকে সামনে রেখে এখন নতুন করে মাঠে নেমেছে, সে সব নেতাদের চিহ্নিত করতে হবে। তৃণমূলের সাথে যে সব নেতাদের যোগাযোগ রয়েছে, যারা আন্দোলন করতে গিয়ে মামলা-হামলার শিকার হয়েছে, তাদেরকেই নতুন কমিটিতে স্থান দেয়া হবে বলে আমি বিশ্বাস করি।সে হিসেবে জেলা কমিটিতে মামুন রশিদ ও মহানগর কমিটিতে আব্দুল আজিজকে আমি যোগ্য মনে করি।

জেলা বিএনিপির এক নেতা বলেন, কমিটি গঠনকে সামনে রেখে এখন মৌসুমী নেতাদের আনাগোনা বেড়ে গেছে । যারা বিগত দিনে আন্দোলনে ছিল না। যারা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ডাকে সাড়া না দিয়ে ঘরে বসে ছিল, সে সব নেতাদের হাতে জেলা ও মহানগর যুবদলের নেতৃত্ব উঠবে না বলেই আমি বিশ্বাস করি। আশাকরি যুবদলের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গদলের নেতৃত্বভার  মামুন-আজিজের মত ত্যাগী ও নির্যাতিত নেতার কাঁধেই অর্পণ করবেন কেন্দ্রীয় যুবদল নেতারা।

Leave a Reply