পোপের জন্য ঢাকা প্রস্তুত : ইনু

রাজনীতি

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে পোপ ফ্রান্সিসের আসন্ন সফর উপলক্ষে সরকার ও গণমাধ্যম ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করছে। খবর বাসসের।

বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ৩০ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পোপের বাংলাদেশ সফর উপলক্ষে ঢাকায় নিযুক্ত ভ্যাটিক্যানের রাষ্ট্রদূত আর্চবিশপ জর্জ কোচেরী এবং ‘বাংলাদেশে পোপের সফর ২০১৭ পরিষদ’-এর নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকে তিনি একথা বলেন। তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘খ্রিস্টধর্মের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ আমন্ত্রণই বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যরে প্রমাণ। মহান মুক্তিযুদ্ধে ধর্মযাজকেরা এদেশের মানুষের পাশে ছিলেন, আত্মত্যাগও করেছেন। শুধু তাই নয়, এদেশের শিক্ষা বিস্তারে, স্বাস্থ্য সেবায় ও সমাজ কল্যাণেও চার্চ আন্তরিক ভূমিকা রেখে চলেছে। বড়দিন এদেশে সরকারি ছুটির দিন’।

তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ পোপের সফরকালে অনুষ্ঠানগুলো বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ সকল গণমাধ্যমে সম্প্রচারে সর্বাত্মক সহযোগিতার কথা জানান।

ভ্যাটিক্যানের রাষ্ট্রদূত এবং ‘বাংলাদেশে পোপের সফর ২০১৭ পরিষদ’-এর নেতৃবৃন্দ তথ্য মন্ত্রণালয়কে এ সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান।

বাংলাদেশে পোপের সফর ২০১৭ পরিষদের প্রধান সমন্বয়কারী বিশপ শরৎ ফ্রান্সিস গমেজ, নির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর জেনারেল (অবঃ) জন গমেজ, নির্বাহী কমিটির সচিব ড. বেনেডিক্ট আলো ডি’ রোজারিও, মিডিয়া বিষয়ক কমিটির আহ্বায়ক ফাদার কম কোড়াইয়া, নিরাপত্তা ও স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক কমিটির আহ্বায়ক ও প্রেডিডেন্ট বাংলাদেশ খ্রীষ্টান এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট নির্মল রোজারিও, বিদেশী সাংবাদিক সমন্বয়কারী ফাদার জর্জ পনোদাত, এস.জে, মিডিয়া বিষয়ক কমিটির সচিব ফাদার আগষ্টিন বুলবুল রিবেরু, মিডিয়া বিষয়ক কমিটির সদস্য ডেভিড সুব্রত দাস এবং নির্বাহী কমিটির যুগ্ম-সচিব ফাদার সুব্রত গমেজ সভায় অংশ নেন।

বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান চায়: তথ্যমন্ত্রী
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, অং সান সু চির প্রস্তাবিত আলোচনা হতে পারে, কিন্তু বাংলাদেশ চায় রোহিঙ্গাদের সমস্যার স্থায়ী সমাধান।

রবিবার কক্সবাজারের উখিয়ায় থ্যাংখালী শরণার্থী শিবিরে রোহিঙ্গাদের জন্য জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের ত্রাণ বিতরণ শেষে বিকেলে কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। খবর বাসসের।

তিনি বলেন, জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবের ভিত্তিতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার-জাতিসংঘের ত্রিমুখী ব্যবস্থাপনায় রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত, নাগরিকত্ব ও ক্ষতিপূরণ প্রদান, পুনর্বাসন করা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচারের বিকল্প নেই।

বিএনপি’র ঐক্যের প্রস্তাব সম্পর্কে জাসদ সভাপতি ইনু বলেন, ‘জামায়াত-বিএনপি ছাড়া দেশবাসী ও বিশ্ববাসী সবাই শেখ হাসিনার পাশে রয়েছেন। রাজনীতিকে পাশে সরিয়ে রেখে মানবতাকে সবার ওপরে তুলে ধরে শেখ হাসিনা যখন শরণার্থীদের রক্ষা ও সংকট নিরসনে শান্তিপূর্ণ উদ্যোগ নিয়েছেন, তখন বিএনপি এর সমালোচনায় লিপ্ত। কারণ তারা এক্ষেত্রে গঠনমূলক কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি।

তথ্যমন্ত্রী এসময় রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের মানবিক সহায়তা দিতে এগিয়ে আসায় কক্সবাজার ও বান্দরবানবাসী, প্রশাসনিক কর্মচারিবৃন্দ ও দেশ ও বিদেশে সঠিক চিত্র তুলে ধরার জন্য সকল গণমাধ্যমকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

কক্সবাজার জেলা জাসদ সভাপতি নাইমুল হক চৌধুরী টুটুলের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপিও বক্তব্য রাখেন। দলীয় নেতাদের মধ্যে রবিউল আলম, অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, শফি উদ্দিন মোল্লা, শহীদুল ইসলাম, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, শওকত রায়হান, রোকনুজ্জামান রোকন, সামছুল ইসলাম সুমন, মাহতাব হোসেন প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে তথ্যমন্ত্রী উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলো পরিদর্শনকালে স্থানীয় জনতা, প্রশাসন ও রোহিঙ্গাদের সাথে আলাপ করেন। এসময় জাসদের পক্ষ থেকে উখিয়া ত্রাণ সমন্বয় কেন্দ্রে ১০ হাজার বস্তা ত্রাণ হস্তান্তর করেন তিনি।

Leave a Reply